ট্রমা (দ্বিতীয় অংশ)

ট্রমার কারণ(দ্বিতীয় অংশ)

ট্রমার কারণ( causes of trauma):
ট্রমা ব্যক্তিভিত্তিক। বিষয় এবং এর কারণেও ভিন্নতা থাকতে পারে।তবে সাধারণ কিছু উপাদান ট্রমার কারণ হতে পারে।যেগুলো শারীরিক, আবেগীয় কিংবা সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্য এমন কতগুলো উপাদান। নিম্নে তা দেওয়া হলো-

নির্যাতনঃনির্যাতন শারীরিক, মানসিক, মৌখিকও হতে পারে।এমনকি সঠিক চিকিৎসা না পাওয়াও নির্যাতনের আওতায় পড়ে।এ ধরণের ঘটনা বারবার বা দীর্ঘদিন ধরেও ঘটতে পারে।

 

সহিংসতাঃসহিংসতার অভিজ্ঞতার ফলেও ট্রমা হতে পারে।কেউ শারীরিক সহিংসতা কিংবা জোরপূর্বক কোন কিছু ঘটনাট ফলেও মানসিক ট্রমা হতে পারে।

 

দুর্ঘটনাঃকোন বড় ধরণের দুর্ঘটনা ট্রমার জন্ম দিতে পারে। ধরা যাক, কোন ব্যক্তি দুর্ঘটনা বশত সে তার কোন একটি অঙ্গহানি(হতে পারে-হাত,পা)ইত্যাদি)হলে এবং শারীরিকভাবে কোনরকম ক্ষতিগ্রস্ত হলে ট্রমা হতে পারে।দুর্ঘটনা তাকে এতটাই মানসিক পীড়া দেয় বা দিতে পারে যে,ঐ ঘটনা ব্যক্তিকে বারবার মনে করিয়ে দিতে পারে।

দুর্যোগঃপ্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন -ভূমিকম্প,সুনামী,ঘূর্ণিঝড়, টর্নেডো এবং মনুষ্য সৃষ্ দুর্যোগ -যুদ্ধ,বোমা হামলা,দালান ধ্বসে পড়া,আগুনে পুড়ে যাওয়া প্রভৃতি মানুষের ক্ষতি করে।এমনকি মৃত্যু ও ঘটতে পারে।এ ধরণের ঘটনা সাধারণত দুইভাবে প্রভব ফেলতে পারে। অর্থাৎ এটি প্রত্যক্ষও হতে পারে আবার পরোক্ষ ভাবেও হতে পারে।
যেমন -যদু বাস্তব কাহিনী বলি”রফিক সাভারে রানা প্লাজা ভবন ধসের কথ শুনে তিনি উদ্ধার কাজে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেন।তিনি সাধারণত রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন।যেহেতু রাজমিস্ত্রি ছিলেন তাই ভবনের ভিতরে ঢুকতে তিনিই বেশি পারদর্শী। এতে দলের মধ্যে তিনি সবচেয়ে বেশি লাচ উদ্ধার করতে পেরেছিলেন।প্রকট গন্ধ উপেক্ষা করেও গলিত লাশগুলো বের করেছিলেন তিনি।কিন্তু উদ্ধার কাজ শেষ করাট কিছুদিন পর লক্ষ্য করা যায়,তারমধ্যে কিছু পরিবর্তন এসেছে।অনেক লক্ষণ তার মধ্যে দেখা যাচ্ছে।তিনি রাতে ঘুমোতে পারেননা।।কাউকেই যেন তিনি চিনতে পারেননা। তার স্ত্রী আনেয়ারা ধরাকন্ঠে বলেন,১৩দিন আগ থেকে পুরোই বদলে যান রফিকুল।ঘুমের মধ্যেও লাশ খোঁজেন।মাঝে মাঝে তিনি চিৎকার করে বলেন”এখানে লাশ আছে,ব্যাগ আনেন,কাপড় আনেন।”
বর্তমানে তিনি হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

ঘনিষ্ঠজনের অসুস্থতা বা মৃত্যুঃনিকট আত্মীয় বা ঘনিষ্ট কারো মৃত্যু কিংবা অসুস্থতা ব্যক্তির কাছে কষ্টদায়ক অভিজ্ঞতা হতে পারে।একই ভাবে আপন জনের প্রত্যাশিত কিংবা অপ্রত্যাশিত মৃত্যু ব্যক্তির বিশ্বাসকে প্রশ্ন করতে পারে এবং তার আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।__
(সূত্রঃকাউন্সেলিং সাইকোলজি;বুক রেফারেন্স)

nispriho

আস্সালামুয়ালাইকুম। # Chittagong. #স্টুডেন্ট#ভালো লাগলেও জানান না লাগলেও কমেন্টে জানান#মানুষ মাত্রই ভুল#ভুল হলে ক্ষমাপ্রার্থী 👧

২ thoughts on “ট্রমা (দ্বিতীয় অংশ)

Leave a Reply