রাতের ভয়

১৯৯৫সাল । সে সময় আমি আর আমার বন্ধুর মাছ ধরার শখ ছিল সবচেয়ে বেশি। শুধু শখ ছিল তাইনা বলতে পারেন পেশা হিসাবেও বেছে নিয়েছিলাম। বাড়ির থেকে ৭বা ৮ মিনিট দুরেই নদীটি। অর্থাৎ খুব কাছেই নদীটি বয়ে চলেছে । আমরা সাধারনত রাতেই মাছ ধরার কাজটা বেশি করতাম । বিশেষ করে ফজরের ওয়াক্তের পর মাছ ধরার উৎসাহটা বেশি যোগাত। এবং নিয়মিত ফজরের পর মাছ ধরার জন্য আমরা দুই বন্ধু একসাথে যেতাম। এরকম ভাবেই চলতে থাকে আমাদের জীবন। হঠৎ করে আমি একদিন অসুস্থ হয়ে যায় । বলতে পরেন সাধারন শরীর খারাপ। সেদিন আমি আমার বন্ধুকে বলে দিয়েছিলাম ভোরে যাতে না ডাকে আমরা এদিন মাছ ধরবো না। কারনটা আগেই বলেছি , আমি অসুস্থ।

যেই কথা সেই কাজ। সেদিন  বাড়ি এসে তাড়াতড়ি শুয়ে পড়ি। শরীরটা মনে হয় আরও খারাপের দিকে ‍যাচ্ছিল। আগামীকাল মাছ ধরতে পারবনা সেই ভেবে মনটা অস্থির হয়ে গিয়েছিল। এই ভেবে ভেবে ঘুমিয়ে যাই। হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে যাই , আসলে কে জেন আমায় ডাকছে। ভালভাবে শুনতে চেষ্টা করি ,হ্যা এটা আমার বন্ধুর কন্ঠ । আমি আর্শ্চয হলাম ডাকটা একটু দুর থেকে আসছিল। এবং আমার নাম ধরে ডেকে যাচ্ছিল এবং বলছিল কিরে আজ মাছ ধরতে যাবিনা। আমি অবাক হয়ে বললাম , আজতো মাছ ধরার কথা না, আমি যে অসুস্থ তোকেতে আগেই বলেছিলাম। সে আমার কথায় কান দিল না। অবশ্য আমি ঘর থেকেই কথা গুলো বলছিলাম।সে আমাকে বলল, রাখত তোর অসুখ-বিসুখ , আজ অনেক মাছ পাওয়া যাচ্ছে এবং সকাল হতেও দেরি নাই। তারাতারি বের হয়ে আসত। আমার বন্ধুর কথায় আমি সারা দিলাম তা’নাহলে সে মন খারাপ করবে । আমি ঘর থেকে বেরিয়ে দেখি সে দরজা হতে অনেকটা দুরে দাড়িয়ে আছে। তাকে ভালভাবে চেনা যাচ্ছিলনা। সে আমাকে দ্রুত হাঁটতে বলল। আসলে তখন রাত কতটা বাজে সেটা মনযোগ দিলামনা বরং মনযোগ দিলাম আমার বন্ধুর দিকে। আমি বললাম এতো তারাতারি কিসের জন্য,আছতে আছতে যায়। সে বলল আরে প্রায় সকাল  হয়ে গেছে তারাতারি যেতে হবে তা’নাহলে বেশি মাছ পাওয়া যাবেনা। আমি তার কথামত তার পিছনে যেতে লাগলাম। কিন্তু সে আমার কাছ থেকে পনের বিশ হাত দুরে ‍দুরে থাকে। আমি তার সাথে হেটে  সমান তালে যেতে পারছিলাম না।

আমি বললাম নদীটিত কাছেই এত তারাহুরা কেন। সে রাগে আমাকে বলল তোরে তারাতারি আসতে বলছি আসবি এত কথা বলিসনা । অবশ্য আমার বন্ধু এরকম আচরন অগে করেনি।যাইহোক,আমি কথা না বলে যেতে থাকলাম। যখন নদীটির কছে এসে পৌছাম তখন সে জাল নিয়ে তারাতারি নদীতে নেমে গেল এবং খুব দ্রুতই নদীর মাঝখানে চলে গেল। আর আমি নদীর কিনারায় মাছ ধরার চেষ্টা করছিলাম। কিন্তু তার এটা পছন্দ হলনা। সে আমাকে বলল আরে গাঁধা ঐখানে মাছ পবিনা নদীর মাঝখানে আয় এখানে অনেক মাছ পাওয়া যাচ্ছে। আমি বেশি দুর যেতে পারলাম না, কারন আমার মুখ বরাবর পানি এসে যায়। আমার পক্ষে আর যাওয়া সম্ভাব ছিলনা। তখন আমার ভয় লাগছিল , আমি কিছুটা নদীতে যাওয়ার পর আর যেতে পারছিনা কিন্তু সে কিভাবে নদীর মাঝখানে চলে যায় এবং মাছ ধরতেছে।

আমার মনে হয় আমি বঝি সপ্ন দেখতেছি। কিন্তু এটা সপ্ন না এটা বাস্তব। আমি প্রচুর ভয় পেলাম ।আমি তখন নিশ্চিত যে এটা আমার বন্ধু না।প্রায় ১ঘন্টা যাবত আমি সেখানে ছিলাম ।আমি সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে আসি। আরও আধ ঘন্টা পর আমি ফজরের আযান শুনতে পায়। সকালে আমার শরীরে অবস্থা খারাব। আমার মনে হচ্ছে আমার শরীর পুরে যাচ্ছে এবং শরীরে কাপুনি থামছেনা।সেদিন আমার বন্ধু আমায় দেখতে আসে এবং আমি সব খুলে বলি , এসব শুনে সে বলে এই মাত্র  তোমার সাথে আমার দেখা , এসব কিছুর আগাগোড়া  কিছুই আমি জানি না। সেই ঘটনা এখন আমার চোখে ভেসে উঠে। ( আমার দাদার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাটি তার ভাষায় লেখাটি প্রকাশ করা হয়েছে )

md samad

I am samad. I am complete inter.

২ thoughts on “রাতের ভয়

  • মার্চ ১৭, ২০১৯ at ৬:৪৩ অপরাহ্ণ
    Permalink

    অসাধারণ,,, চালিয়ে যান

  • মার্চ ১৮, ২০১৯ at ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ
    Permalink

    দোয়া করবেন। কমেন্টর জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply