জঙ্গল

 জঙ্গল নিয়ে লেখা এই ভৌতিক গল্পটি লেখকের প্রথম লেখা হওয়ায় ২০০ শব্দের কম শব্দে হওয়া সত্বেও প্রকাশ করা হচ্ছে, এরপর লিখলে নীতিমালা মেনেই লিখতে হবে।

এটি একটি সত্য ঘটনা। এই ঘটনাটি আমার মামার সাথে ঘটেছে।২০০২ বা ২০০৩ ঘটানাটি ঘটে থাকবে। তখন আমি খুবই ছোট ছিলাম। ঘটনাটি আমার মা’র কাছ থেকে শোনা এবং পরে মামার কাছ থেকে আরও ভালভাবে জেনেছি ।যাইহোক, এখন মুল কথাই ফিরে আসি। প্রথমেই বলি আমার মামা টেলিভিশন দেখতে অনেক পছন্দ করতেন। তখন গ্রামে টিভি’র এত প্রচলন ছিল না। মামা যে গ্রামে থাকতেন সেখান হতে প্রায় আধ ঘন্টা বা তার চেয়ে বেশি হেটে গিয়ে প্রায় টিভি দেখতেন। মূলত এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রাম। সব সময় জঙ্গলের পথ দিয়ে যাতায়াত করতেন। এমন একদিন টিভি দেখে আসার সময় প্রায় রাত বারটার বেশি বেজে যাই। অবশ্য মামাকে তার বন্ধু থাকার জন্য বলেছিল কিন্তু মামা রাজি হয়নি। জঙ্গলের পথে মামা হাটা শুরু করল। প্রায় বিশ মিনিট হাটার পর মামা একটি জঙ্গলের ঝুপের ঝাড়ে এসে যখন থামল তখন একটি শব্দ শুনতে পেল এবং চারদিক থেকে আওয়াজ হচ্ছিল। মামা সে সময় খুব ভয় পেল।সেখানে কিছু একটা দেখেই চিৎকার করল এবং আমার নানাকে ডাক দিল । কারণ তখন বাড়ির কাছাকছি এসে গিয়েছিল। নানা ডাক শুনেই কয়েক জনকে নিয়ে জঙ্গলে গেল । মামাকে তারা খুজাখুজির পর একটা ক্ষেতের মাঝখানে কাদা মাখায় অবস্থায় পেল। মামার সাথে কী হয়েছে মামা ভালভাবে বলতে পারে না।কারণ মামা তখন অজ্ঞান হয়ে পড়ে ছিল। এরপর আরও অনেকবার এধরনের ঘটনার সম্মুখে পড়তে হয়েছে। তাবিজ দেওয়ার পরও তেমন কোন কাজ হয়নি। দিনের দুপুরে মামাকে আক্রমন করত এবং বলত আলাদা একটি ঘরে যাতে থাকে। পরে হজুরের পরামর্শে মামা নিয়মিত পাচ ওয়াক্ত নামায পড়া শুরু করে। আল্লাহর রহমতে মামা এখন ভাল আছে । এখন আর এধরনের সমস্যার মধ্যে পড়ে না।

md samad

I am samad. I am complete inter.

২ thoughts on “জঙ্গল

  • মার্চ ১৭, ২০১৯ at ৮:৩৯ পূর্বাহ্ণ
    Permalink

    ভালো লাগল। আর নামাজ সব সমস্যার সমাদান দেয়।

Leave a Reply