জেন্ডার সংবেদনশীলতা কি জানেন??

জেন্ডার সংবেদনশীলতা

আমরা মানুষ, সামাজিক জীব । আর এই সমাজ গড়ে উঠে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পরিবার নিয়ে আর পরিবার গঠনের মূল শর্ত হলো একজন নারী ও একজন পুরুষ সামাজিক নিয়মে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া। অর্থাৎ এর দ্বারা প্রমাণিত হয় আমরা যে সমাজে বাস করি তাতে যেমন পুরুষের ভূমিকা আছে ঠিক তেমনি প্রতিটি নারীর সমান ভূমিকা আছে । আর সেই ভূমিকা থেকেই এই জেন্ডার সংবেদনশীলতা শিরোনামের আজকের আমার এই আর্টিকেল ।

 

আস্সালামু আলাইকুম ,

অন্যান্য ধর্মালম্বীদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা । আমি আসিফ আমান জিহাদ আজকে আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি যে আর্টিকেল টি তা জেন্ডার সংবেদনশীলতার উপর রচিত । জেন্ডার অর্থা আপনি পুরুষ না মহিলা নাকি তৃতীয় লিঙ্গ অর্থাৎ আপনার লিঙ্গ বুঝায় । জেন্ডার শব্দটি ইংরেজী শব্দ যা বুঝার সুবিধার্থে বাংলায় উচ্চারিত ও লিখিত । সংবেদনশীলতা বাংলা শব্দ এর অর্থ এই ক্ষেত্রে দ্বারায় বিপরীত লিঙ্গের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সম্মান ও সঠিক সমান মর্যাদা প্রদান ।

নারী ও পুরুষ মিলেই আমাদের সমাজ গড়ে উঠেছে। সভ্যতার শুরু থেকে আজ পর্যন্ত নারী ও পুরুষ যায যার অবস্থান থেকে সমাজে তাদের ভূমিকা বজায় রাখছে এবং গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা পালন করছে যা আমাদের সমাজকে আরো উন্নত করছে । কিন্তু সভ্যতার বিবর্তনের সাথে সাথে নারী ও পুরুষের অবস্থানের ও ভূমিকার পরিবর্তন হতে থাকে । নারী ও পুরুষের পরস্পরের প্রোই দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে থাকে । তাদের মধ্যে বিভিন্ন সামাজিক ও আচরণিক ভিন্নতা দেখা দেয় । নারী ও পুরুষের সামাজিক দৃষ্টি ভঙ্গির এই সম্পর্ক জেন্ডার বলে ।

জেন্ডার মানুষের জৈবিক পরিচয়কে নির্দেশ করে না বরং নারী ও পুরুষের সামাজিক সম্পর্ক ও দৃষ্টিভঙ্গিকে নির্দেশ করে । অর্থাৎ জেন্ডার হচ্ছে নারী- পুরুষের কাঙ্ক্ষিত আচরণ থা পরিবার , সমাজ ও সংস্কৃতি থেকে বিকশিত হয় । যেকোনো প্রতিষ্ঠান বা সমাজব্যবস্থায় নারী – পুরুষের সমঅবস্থানে থেকে সমান কর্মদক্ষতার সাথে বা সঙ্গে কাজ করবে এবং সামাজিক মর্যাদা ও সমান আর্থিক সুবিধাদি ভোগ করবে । এই ধারণাকে সামনে রেখে যেকোনো কর্মসম্পাদন প্রক্রিয়াকে জেন্ডার সংবেদনশীলতা বলে ।

 

জেন্ডার কি, জেন্ডার সংবেদনশীলতা কি এই নিয়ে অনেকের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা আছে আশা করি আমি তার সামান্য হলেও সঠিক করতে পেরেছি বা ভুল কে ধরিয়ে দিতে পেরেছি । আমার নিজেরেও ভুল হতে পারে কারণ

“মানুষ মাত্রই ভুল । যে মানুষ ভুল করে না সে মানুষ নয় , হয় সে বিধাতা নয় সে জানোয়ার”

আমি আমার কথার দ্বারা কোনো ধর্ম, ব্যক্তিকে আঘাত হানতে চাই নি । এই আর্টিকেল টি আমার একান্ত মতামত ও নবম দশম শ্রেণির ক্যারিয়ার শিক্ষা বইয়ের আলোকে রচিত তাই অন্যান্য মানুষের সাথে মতের পার্থক্য থাকতে পারে । আমি সর্বদা সবার মতামতকে সমান মর্যাদা দেই ।

কোনো প্রকার মতামত, ভূল, পরামর্শ জানানোর থাকলে কমেন্টে জানাবেন ভালো লাগলে শেয়ার করবেন ।

ধন্যবাদ

Asif Aman Jihad

আমার নাম আসিফ আমান জিহাদ । আমি একজন ছাত্র । আমি আমার কাজ কথা লেখার মাধ্যমে সর্বদা চেষ্টা করি মানুষের পাশে দাড়াতে তাদের সাহায্য করতে ধন্যবাদ

৮ thoughts on “জেন্ডার সংবেদনশীলতা কি জানেন??

  • মার্চ ৯, ২০১৯ at ১২:১৫ অপরাহ্ণ
    Permalink

    বেশ ভালো লিখেছেন। সমাজের সকলের উচিৎ নারী ও পুরুষ উভয়ের প্রতি একই রকম দৃষ্টিভঙ্গি রাখা….

    • মার্চ ৯, ২০১৯ at ৭:০২ অপরাহ্ণ
      Permalink

      ধন্যবাদ আপনাকে কমেন্ট করার জন্য । আপনার সাথে আমিও সহমত প্রকাশ করছি

  • মার্চ ৯, ২০১৯ at ১২:২৩ অপরাহ্ণ
    Permalink

    নারী-পুরুষ একে অপরের পরিপূরক।

    • মার্চ ৯, ২০১৯ at ৭:০৩ অপরাহ্ণ
      Permalink

      ঠিক বলেছেন তারা একই কয়নের এপিট আর ওপিট । ধন্যবাদ আপনাকে কমেনাট করার জন্য

  • মার্চ ৯, ২০১৯ at ৮:০১ অপরাহ্ণ
    Permalink

    পাঠ্যবইয়ের লেখাগুলোর সূত্র কিন্তু জানা জায় না
    পাঠ্যবইয়ের, বিশেষ করে যে বইয়ে তথ্যসূত্র নেই সেখান থেকে তথ্য না নেওয়াই ভাল

    • মার্চ ১১, ২০১৯ at ৫:০৭ অপরাহ্ণ
      Permalink

      পাঠ্য বইগুলো দেশের সব থেকে সেরা শিক্ষকের দ্বারা রচিত । তারা যা লেখা সেগুলো সঠিক ও শুদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনা 95% । আপনার কথার প্রেক্ষিতে বলতে হয় স্কুলের শিক্ষার্থীদের এই বই পড়ানো উচিৎ নয় কারণ সেখানে তারাও কোনো তথ্যসুত্র পাচ্ছে না । আমি আপনাকে আঘাত হানতে কিছু বলছি না যৌক্তিক কথা বলছি ।
      পরবর্তীতে আপনার উপদেশ টা মানার চেষ্টা করবো । ধন্যবাদ কমেন্ট করার জন্য

  • মার্চ ১০, ২০১৯ at ২:৫৪ অপরাহ্ণ
    Permalink

    যা লিখেছেন, তা নিজের জীবনেও আশা করি ফলো করবেন

    • মার্চ ১১, ২০১৯ at ৫:০৯ অপরাহ্ণ
      Permalink

      ছোট থেকেই মায়ের কাছে শিখছি , তুমি এক মায়ের সন্তান সেই মা যেমন মেয়ে তেমনি তোমার সমাজের বাকি মেয়েরাও মায়ের জাত । নিজের মাকে যেমন সম্মান করো তাদের ও সেই সম্মানটুকু করবা । মায়ের এই উপদেশ টা সর্বদা পালন করার চেষ্টা করছি ।
      ধন্যবাদ আপনার পরামর্শের জন্য ।

Leave a Reply